Add Recipe

যে ১০টি খাবারে শিশুর উচ্চতা বাড়ে!

জেনে নিন একটি শিশুর উচ্চতা তার জেনেটিক বৈশিষ্ট্যের সাথে সম্পর্কযুক্ত। তবে আপনার শিশুর সার্বিক বিকাশের ক্ষেত্রে উচ্চতা একটি গুরুত্বপূর্ণ নির্দেশক। শিশুরা তাদের নিজস্ব গতিতে বেড়ে ওঠে এবং যথাযথ পুষ্টির অভাবে অনেক শিশুই গড় উচ্চতায় পৌঁছাতে পারেন না। তাই বৃদ্ধির বছরগুলোতে শিশুদের সামগ্রিক বিকাশের জন্য সুষম খাদ্যের পাশাপাশি কিছু নির্দিষ্ট পুষ্টি উপাদান রয়েছে যা উচ্চ পরিমাণে বৃদ্ধি নিশ্চিত করতে অধিক প্রয়োজনীয়।

ডিম

 

একটি ডিম প্রায় ৬.৫ গ্রাম প্রোটিন সরবরাহ করে। এতে প্রায় সমস্ত প্রয়োজনীয় অ্যামিনো এসিড থাকে। যা শিশুর দৈহিক কাঠামো গঠনে বিশেষ ভূমিকা রাখে। এছাড়া এতে ভিটামিন ডি, ফসফরাস, ওমেগা ৩ ফ্যাটি এসিড, সেলেনিয়াম এবং আয়োডিনের মতো আরও বেশ কয়েকটি পুষ্টি উপাদান রয়েছে যা শিশুদের সামগ্রিক বৃদ্ধি ও বিকাশ কে ত্বরান্বিত করে।

দুধ

দুধে থাকা প্রোটিন, ভিটামিন ডি এবং পটাশিয়াম, ক্যালসিয়াম, ফসফরাস, ম্যাগনেসিয়াম শিশুর হাড়ের বিকাশকে ত্বরান্বিত করে।

সয়াবিন

শিশুর ডায়েটে সয়াবিন থেকে তৈরি পণ্য গুলো যেমন- সয়া ময়দা,সয়া দুধ, সয়া সস, টফু ইত্যাদি বিবেচনা করুন। কারণ এতে বিদ্যমান ক্যালসিয়াম হাড়কে পুরুত্ব দেয়।

গরুর মাংস

প্রচুর প্রোটিন এবং আয়রনসহ অল্প পরিমাণে মাইক্রোনিউট্রিয়েন্ট থাকে যা রক্তস্বল্পতা প্রতিরোধ করে।

গরুর মাংস সেচুরেটেড ফ্যাট সমৃদ্ধ তো তাই রান্নার পূর্বে অতিরিক্ত চর্বি বাদ দিয়ে দিন।

মুরগির মাংস

শিশুদের জন্য মুরগির মাংস আদর্শ আমিষের উৎস কারণ এতে ক্ষতিকারক সেচুরেটেড ফ্যাট কম থাকে।

ডাল ও বিচি জাতীয় খাবার

বেশিরভাগ বীজে প্রোটিন এবং ক্যালসিয়াম, ওমেগা ৩ ফ্যাটি এসিড এবং ফাইবারের পরিমাণ  বেশি থাকে। মুসুর, মটরশুটি, শিমের বিচি, লাল কিডনি বিন ইত্যাদি উচ্চ প্রোটিন এবং কম চর্বিযুক্ত।তাই শিশুর দৈনিক খাবারে এসব পুষ্টি যোগ করুন।

পাতা সবজি

 

যেসব শিশুদের ল্যাকটোজ অসহিষ্ণুতা বা দুধে এলার্জি রয়েছে তাদের জন্য শাকসবজি ক্যালসিয়ামের একটি ভালো উৎস। যেমন- শালগম্, ব্রকলি ।এছাড়া পাতা সবজি ভিটামিন কে এর একটি ভালো উৎস। শিশুকে রঙিন শাকসবজি দিন।

বাদাম

বাদামে প্রোটিন, ক্যালসিয়াম,লৌহ, ওমেগা ৩ ফ্যাটি অ্যাসিড ভালো পরিমাণে থাকে যা হাড়ের পাশাপাশি স্বাস্থ্যের উন্নতি করে।

শস্য

 

আপনারা শিশুর খাবারে হোল গ্রেইন ফুড অন্তর্ভুক্ত করুন। ওট, বার্লি এবং অন্যান্য শস্য ।এগুলোতে ক্যালসিয়াম কম থাকলে ও ম্যাগনেসিয়াম বেশি থাকে।যা হাড় গঠনে সহায়ক।

খনিজ সমৃদ্ধ ফল

কমলা, অ্যাপ্রিকট, আনারস, পেঁপে ইত্যাদিতে ক্যালসিয়াম থাকে। তাছাড়া সব রকমের রঙিন ফল ডায়েটে যোগ করুন।

একটি সুপরিকল্পিত সুষম ডায়েট এবং এর নিয়মিত অনুশীলন আপনার শিশুর উচ্চতা বাড়তে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখতে পারে।

সূত্র:National Health Service UK(https://www.nhs.uk/),American Academy of Pediatrics(https://www.aap.org/en-us/Pages/Default.aspx),Healthline(https://www.healthline.com/)WebMD(https://www.webmd.com/)

 

You May Also Like

Leave a Review

Your email address will not be published. Required fields are marked *

X
Have no product in the cart!
0