Add Recipe

গর্ভবতী মায়েদের প্রয়োজনীয় পাঁচটি  খাদ্য উপাদান

প্রোটিন

ভ্রূণের সঠিক বৃদ্ধির জন্য প্রোটিন অপরিহার্য পাশাপাশি মায়ের সুস্বাস্থ্য বজায় রাখার জন্য ও এটি আবশ্যক। রক্ত, হাড়, অঙ্গ,পেশী তৈরীর জন্য প্রোটিন আবশ্যক। অপর্যাপ্ত প্রোটিন গ্রহণের ফলে মারাত্মক অপুষ্টির হতে পারে। আপনার প্রতিদিনের খাদ্য তালিকায় প্রথম তিন মাস অতিরিক্ত ০.৫ গ্রাম,পরের তিন মাস ৬.৯ গ্রাম এবং শেষ তিন মাস ২২.৭ গ্রাম প্রোটিন দরকার অর্থাৎ শেষ তিন মাসে প্রায় ৬৫-৭০ গ্রাম প্রোটিনের দরকার।

প্রোটিন সমৃদ্ধ কিছু খাবারের তালিকাঃ

দুধ ২০০ মিলি ৭ গ্রাম
ডাল ১ বাটি ৭ গ্রাম
ডিম ১টি ১৩.২৮ গ্রাম
মুরগির মাংস ১০০ গ্রাম ১৯ গ্রাম
কাঠবাদাম ৩০গ্রাম ৫.৪ গ্রাম

ফলিক এসিড

স্নায়ুতন্ত্রের ত্রুটি , মেরুদন্ডের হাড় এবং মস্তিষ্কের গুরুতর অস্বাভাবিকতা রোধে ফলিক এসিড অত্যন্ত প্রয়োজনীয়। এটি জন্ম ওজন বৃদ্ধি,হিমোগ্লোবিন উৎপাদন এবং প্রিমেচিউর ডেলিভারির ঝুঁকি কমাতে সহায়ক।

একজন গর্ভবতী মায়ের দৈনিক ৫০০ মাইক্রো গ্রাম ফলিক এসিডের প্রয়োজন রয়েছে।

ফলিক এসিড সমৃদ্ধ কিছু খাবারের তালিকাঃ

 

পাকা আম ১০০ গ্রাম ৯০ মাইক্রো গ্রাম
পেপে ১০০ গ্রাম ৯০ মাইক্রো গ্রাম
বাদাম ১০০ গ্রাম ৬০ মাইক্রো গ্রাম
মুরগির কলিজা ১০০ গ্রাম ১০৩২ মাইক্রো গ্রাম

আয়রন

হিমোগ্লোবিন আমাদের দেহে রক্ত বহন করতে কাজ করে, আর আয়রন হল হিমোগ্লোবিন এর গাঠনিক উপাদান। গর্ভাবস্থায় ভ্রূণের জন্য রক্তের পরিমাণ বাড়ানোর প্রয়োজন হয়। তাই গর্ভবতী মায়ের খাদ্যে দৈনিক ৩৫ মিলিগ্রাম  আয়রন দরকার। প্রিমেচিউর ডেলিভারি ও কম জন্ম ওজনের অন্যতম কারণ হলো মায়ের খাদ্য তালিকায় আয়রনের ঘাটতি।

আয়রন সমৃদ্ধ কিছু খাবারের তালিকাঃ

 

খেজুর ১০০ গ্রাম ৩.২ মিলিগ্রাম
অ্যাপ্রিকট ১০০ গ্রাম ২.০৭ মিলিগ্রাম
চিনাবাদাম ১০০ গ্রাম ৪.৫৮ মিলিগ্রাম
আখরোট ১০০ গ্রাম ২.৯ মিলিগ্রাম

আয়রনের শোষণ বাড়ানোর জন্য সালাদ ও লেবু খাবেন।

ক্যালসিয়াম

ভ্রূণের দাঁত ও হাড়ের সঠিক গঠনের জন্য দৈনিক ১২০০ মিলিগ্রাম ক্যালসিয়াম প্রয়োজন।এছাড়া মায়ের হাড়ের সুরক্ষায় ও অস্টিওপোরোসিসের ঝুঁকি কমাতে ক্যালসিয়াম প্রয়োজন।

ক্যালসিয়াম সমৃদ্ধ কিছু খাবারের তালিকাঃ

কাঠবাদাম ৩০ গ্রাম ৬৪.৪ মিলিগ্রাম
দুধ ১০০মিলি লিটার ১১৮ মিলিগ্রাম
খেজুর ১০০ গ্রাম  ৩৯ মিলিগ্রাম
পনির ৪০ গ্রাম ১৯০ গ্রাম
কিসমিস ১০০ গ্রাম ৫০ মিলিগ্রাম
মুগ ডাল ১০০ গ্রাম ১৩২ মিলিগ্রাম

ভিটামিন এ

দৃষ্টিশক্তি রোগ, প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি এবং ভ্রূণের সঠিক দৈহিক বৃদ্ধি ও বিকাশের জন্য ভিটামিন এ প্রয়োজনীয়। বিশেষ করে শেষ তিন মাস যেহেতু ভ্রূণের বিকাশ খুব দ্রুত হয় এবং রক্তের পরিমাণ বৃদ্ধি পায় তাই ভিটামিন এ চাহিদা বেড়ে যায়। ভিটামিন এ যুক্ত খাবার যেমন- দুধ, মাখন, ডিম, মাছ, মিষ্টি আলু,টমেটো, গাজর, খেজুর ,ধনেপাতা, পাকা আম ইত্যাদি।

You May Also Like

Leave a Review

Your email address will not be published. Required fields are marked *

X
Have no product in the cart!
0